0
(0)

রাজু ফকির,স্টাফ রিপোর্টার//
ওজিলের অবসরের ঘোষণা,রাগে-ক্ষোভে-অভিমানে জার্মানি জাতীয় দল থেকে অবসরই নিয়ে ফেললেন আর্সেনাল তারকা মেসুত ওজিল। তুরস্কের বংশোদ্ভূত এই মিডফিল্ডারের এভাবে বিদায় নেয়ার পেছনে রয়েছে‘ বর্ণবাদী’ এবং ‘অশ্রদ্ধামূলক’আচরণের অভিযোগ।
ওজিলের দাবি রাশিয়া বিশ্বকাপে গ্রুপপর্ব থেকে জার্মানি বিদায়ের জন্য তাকে দায়ী করা হচ্ছে এবং তিনি অনেক ঘৃণামূলক বার্তাসহ ই-মেইল এবং হুমকিও পেয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া লম্বা বিবৃতিতে ওজিল লিখেছেন, তার মনে হচ্ছে কর ও ভালো কাজে অনুদান দিলেও এবং বিশ্বকাপ জিতলেও তাকে জার্মানরা ‘মেনে নিতে পারেনি।
সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনার কারণে অনেক কষ্ট নিয়ে অনেক বিষয় বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আমি আর জার্মানির হয়ে খেলব না; কারণ বর্ণবাদী এবং অশ্রদ্ধামূলক আচরণের শিকার হয়েছি বলে আমার মনে হচ্ছে।’ জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন এখনো ওজিলের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় কিছু জানায়নি।
ওজিল জার্মানির ২০১৪ সালের ব্রাজিল বিশ্বকাপ জয়ে দারুণ ভূমিকা রেখেছিলেন। জার্মানির হয়ে ৯২ ম্যাচে ২৩ গোল করা এই মিডফিল্ডার সমর্থকদের ভোটে ২০১১ সাল থেকে পাঁচবার জাতীয় দলের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন।
এদিকে গত মে মাসে লন্ডনে একটি অনুষ্ঠানে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিজেপ তায়িপ এরদোগানের সঙ্গে ছবি তুলেও সমালোচিত হন ওজিল। এই ছবি তোলার পর জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (ডিএফবি) কড়া সমালোচনা করেছিল ওজিলকে। গত মে মাসে লন্ডনে একটি ইভেন্টে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানের সঙ্গে দেখা হয় ওজিল ও ইলকাই গিনদোয়ানের।
তুর্কি বংশোদ্ভূত। এরদোগানের সঙ্গে দু’জনের ছবি প্রকাশ পেলে জার্মানির রাজনীতিবিদরা সমালোচনায় ?মুখর হন। সমালোচনার মিছিলে ছিলেন জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিও। ওই ছবির ভেতরে রাজনীতি ছিল না বলে জানান ওজিল, ‘এটা রাজনীতি বা নির্বাচন ছিল না। এটা ছিল আমার পরিবারের দেশের সবচেয়ে বড় পদটাকে শ্রদ্ধা জানানো। চারপাশের আচরণে ক্ষুব্ধ আর্সেনালের এই খেলোয়াড়।
তিনি বলেন, ‘দারুণ গর্ব এবং শিহরণ নিয়ে আমি জার্মানির জার্সি পরতাম, কিন্তু এখন আর না। নিজেকে অবাঞ্ছিত মনে হচ্ছে, আমি ২০০৯ সালে জাতীয় দলের হয়ে অভিষেকের পর যা অর্জন করেছি তা ভুলে যাওয়া হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।’

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.