0
(0)

মিতু গাইন,স্টাফ রিপোর্টার//
নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের সব ইউনিটের দ্বন্দ্ব নিরসন করে দলের জন্য একতাবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনে কাজ করতে হবে। কারণ আগামীতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না আসতে না পারলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ হবে। আওয়ামী লীগসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তির ওপর আবারও আক্রমণ হবে। বাংলাদেশকে তারা আদর্শচ্যুত করবে। তাই মনে রাখতে হবে, নৌকা যেন না হারে। প্রতিটা আসনই গুরুত্বপূর্ণ। একটি আসনও যেন হারাতে না হয়।
শনিবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের তৃতীয় পর্যায়ের বিশেষ বর্ধিত সভায় শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ করা মানে শুধু নিজের উন্নয়ন করা নয়, দেশ ও দশের জন্য কাজ করাই এই দলের মূল উদ্দেশ্য। বঙ্গবন্ধু দলকে জন্য সময় দেওয়ার জন্য মন্ত্রীত্ব ছেড়েছিলেন। এই দলের জন্য কাজ করতে হলে মানুষের জন্য কাজ করতে হবে।
শেখ হাসিনা আরও বলেন, বাংলাদেশের একটি মানুষও অশিক্ষিত থাকবে না। না খেয়ে থাকবে না। মানুষ নৌকায় ভোট দিয়েছে, সুফল পেয়েছে। আগামীতেও নৌকায় ভোট পেতে জনগণের দোরগোড়ায় যেতে হবে।
আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে তিনি বলেন, সামনে নির্বাচন। এই নির্বাচন কঠিন হবে। এই নির্বাচনে জয়ী না হলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার থেমে যাবে, দারিদ্রের হার বেড়ে যাবে, সামাজিক নিরাপত্তার জন্য যেসব কর্মসূচি চলছে তা বন্ধ করে দেবে, উন্নয়ন কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। এর আগেও এরকম হয়েছিল। তাই সব দ্বন্দ্ব নিরসন করে স্থানীয়ভাবে দলের জন্য কাজ করতে হবে। মনে রাখতে হবে নৌকা যেন না হারে।
দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, মানুষকে বারবার না বললে মানুষ তা মনে রাখে না। তাই উন্নয়নের তথ্যগুলো জনগণের কাছে বারবার তুলে ধরতে হবে।বিএনপি-জামায়াত স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তাই মুক্তিযুদ্ধে পক্ষের শক্তিকে ক্ষমতায় রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, ক্ষমতা হচ্ছে জনগণের সেবা করার জন্য। মানুষের কল্যাণে, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করার জন্য। আমাদের লক্ষ্য মানুষের কল্যাণ। আমরা সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছি।
আওয়ামী লীগকে গণমানুষের সংগঠন দাবি করে শেখ হাসিনা আরও বলেন, আওয়ামী লীগ গ্রামের মানুষের সংগঠন। প্রত্যেকটা গ্রামকে আমরা নগর হিসেবে গড়ে তুলে গ্রামের মানুষগুলো যেন নাগরিক সুবিধা পায় তা নিশ্চিত করবো। আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছি। গ্রামের মানুষ পর্যন্ত এর সুবিধা ভোগ করবে।
বিএনপির কারাবন্দি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, কোর্টে হাজিরা এড়াতে খালেদা জিয়া অসুস্থতার বাহানা করছেন। তিনি অসুস্থতার ভান করে কোর্টে হাজিরা দেন না। এগুলো তার বাহানা।
কোর্টে হাজিরা দিতে পারবে না, এমন অবস্থা তো তার নয়। আসল কারণ হলো, এফবিআইয়ের লোকেরা বসে আছে সাক্ষী দেওয়ার জন্য। এজন্য তিনি এসব বাহানা সামনে আনছেন।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.