ভারতকে হারিয়ে শিরোপা বাংলাদেশের মেয়েদের

রাজু ফকির,স্টাফ রিপোর্টার//
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্বিপক্ষীয় সিরিজের বাইরে কখনো কোনো জেতেনি বাংলাদেশ, সেটি ছেলেদের ক্রিকেট হোক কিংবা মেয়েদের। দীর্ঘ এই শিরোপা-শূন্যতা দূর করেছে রুমানা-ফারজানারা। নারী এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে নতুন এ ইতিহাস গড়লেন বাঘিনীরা। কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভাল মাঠে নারী ক্রিকেটের পরাশক্তি ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে নারী এশিয়া কাপের শিরোপা জিতে নিলো বাংলাদেশ।
নারী এশিয়া কাপের ফাইনালে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভাল মাঠে বোলিংটা খুব ভালো পার্ফামেন্ট দিয়েছে শেষ করেছে বাংলাদেশের। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১১২ রান করতে সক্ষম হয় ভারত। ভারতীয়দের পক্ষে একাই লড়েছেন অধিনায়ক হারমানপ্রিত কৌর। তার অপরাজিত হাফসেঞ্চুরিতেই একশ ছাড়ায় ভারতের ইনিংস।
বাংলাদেশের আমন্ত্রণে আগে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই চাপে পড়ে যায় ভারতীয়রা। ইনিংসের ৪র্থ ওভারে রানআউটের মাধ্যমে প্রথম ব্রেকথ্রু পায় বাংলাদেশ। নাহিদা আকতারের দুর্দান্ত থ্রো’তে ৭ রান করে ফেরেন স্মৃতি মান্ধানা। রানের চাকা থামিয়ে দেন সালমা-নাহিদারা। ইনিংসের ৭ম ওভারে দীপ্তি শর্মাকে সরাসরি বোল্ড করে সাজঘরের পথ দেখান জাহানারা আলম। পরের ওভারেই মিথালি রাজকে ফারজানা হকের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন খাদিজা তুল কুবরা। তার এক ওভার পরে উইকেটরক্ষক শামীমা সুলতানার থ্রো ইচ্ছাকৃতভাবে থামিয়ে আউট হন অনুজা পাতিল।
পঞ্চম উইকেটে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন অধিনায়ক হারমানপ্রিত এবং ভেদা কৃষ্ণামুর্থি। ১৩তম ওভারে কৃষ্ণামুর্থিকে সরাসরি সরাসরি বোল্ড করে জুটি ভাঙেন বাংলাদেশের অধিনায়ক সালমা খাতুন। অপর প্রান্তে বাংলাদেশের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে খেলতে থাকেন হারমানপ্রিত। অষ্টম উইকেটে অভিজ্ঞ ঝুলান গোস্বামিকে নিয়ে ৩৩ রানের জুটি গড়েন হারমানপ্রিত। আউট হওয়ার আগে ১১ রান করেন ঝুলান। ইনিংসের শেষ বলে মিড উইকেটে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন হারমানপ্রিত। ক্যারিয়ারের ৫ম হাফসেঞ্চুরিতে ৫৬ রান করেন তিনি। ভারতের ইনিংস থামে ৯ উইকেটে ১১২ রানে।