গৌরনদীতে অজ্ঞান পার্টির কবলে একমির বিক্রয় প্রতিনিধি

0
(0)

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি//
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বরিশাল-পয়সারহাট রুটে চলাচলকারী একটি যাত্রীবাহী লোকাল বাসের ভেতরে অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়েছেন বরিশালের গৌরনদীতে কর্মরত পলাশ মন্ডল (৩০) নামের বে-সরকারী ঔষধ প্রস্তুত ও বিপননকারী প্রতিষ্ঠান দি একমি ফার্মাসিউটিক্যালসের একজন বিক্রয় প্রতিনিধি।
জানাগেছে, ওই বিক্রয় প্রতিনিধি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পূর্বে বরিশাল শহরের নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে বরিশাল-পয়সারহাট রুটে চলাচলকারী বরিশাল বাস মালিক সমিতির একটি যাত্রীবাহী লোকাল বাসে চড়ে গৌরনদীতে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে মাগরিবের আযান হলে তার পাশের সিটে বসা মুসল্লী’র বেশধারী দুই অজ্ঞান পার্টির সদস্য নিজেদের হাতে থাকা প্যাকেট খুলে ইফতার করতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে তারা তাদের ইফতারী থেকে দুটি খেজুর পলাশ মন্ডলকে খেতে দেন। ওই খেজুর দুটি খাওয়ার পরই পলাশ অজ্ঞান হয়ে যান। এ সুযোগে অজ্ঞান পার্টির ওই দুই সদস্য পলাশ মন্ডলের পকেট কেটে সাথে থাকা নগদ ১৫ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন নিয়ে সটকে পড়ে। রাত সাড়ে ৮টার দিকে লোকাল বাসটির হেলপার, কন্টাক্টর মিলে অজ্ঞান অবস্থায় পলাশকে গৌরনদী নাহার সিনেমা হলের সামনে মহাসড়কের পাশে ফেলে রেখে যায়। মহাসড়কের পাশে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে অন্যান্য ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিগন দ্রুত তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে রাত সাড়ে ৯টার দিকে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি বেডে অচেতন অবস্থায় শুয়ে আছে পলাশ মন্ডল। তার দেহে স্যালাইন লাগানো, পাশে বসে আছেন তার শ্যালক অজয় ভক্ত। তিনি জানান, তার ভগ্নিপতি পলাশের মাঝে মধ্যে হটাৎ জ্ঞান ফিরে আসে। কিছু সময় পর আবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এভাবে জ্ঞান ফেরার ফাঁকে সে অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ার ওই কাহিনী তার কাছে বলেছে।
গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্মরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, পলাশকে চেতনা নাশক কোন দ্রব্য খাওয়ানো হয়েছে। ফলে তার এ অবস্থা। তরে ভয়ের কিছু নেই, শে আশঙ্কামুক্ত। চিকিৎসা চলছে, অচিরেই সে সুস্থ্য হয়ে উঠবে।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.