কমলগঞ্জের বিভিন্ন বাজারে তীব্র যানজট

0
(0)

জয়নাল আবেদীন,কমলগঞ্জ প্রতিনিধি//

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ জনপদ শমশেরনগরসহ বিভিন্ন বাজারে সড়কের মধ্যে যত্রতত্র সিএনজি অটোরিক্সা, আর রিক্সা, টমটমসহ বাস রাখার ফলে প্রতি আধা ঘন্টা অন্তর সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। যানজটে স্কুলগামী শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। যানবাহন চলাচল বেড়ে যাওয়ায়ও এ সমস্যার সৃষ্টি হলেও প্রশাসনিক কোন উদ্যোগ নেই সমস্যা সমাধানে। তাই সার্বক্ষনিক ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগের দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ, কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলার ২০টি ইউনিয়নের দৈনন্দিন হাট বাজার হচ্ছে শমশেরনগরে। নতুন করে বহুতল বিপনী বিতান গড়ে উঠায় ক্রেতাদেরও ভিড় অনেকগুন বেড়েছে। ক্রেতারা বিপনী বিতানগুলিতে এসে তাদের ব্যবহৃত যানবাহন রাখছেন বিপনী বিতানের সামনের সড়কে। শমশেরনগর হয়ে চাতলাপুর স্থল শুল্ক স্টেশন দিয়ে ভারতের উত্তর ত্রিপুরা ও আসামের একাংশে নিয়মিত আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ফলে প্রতিদিন অতিরিক্ত গড়ে ১৫ থেকে ২০টি আমদানি ও রপ্তানির্বাহী পণ্য পরিবহনকারী বড় ট্রাক ও কার্গো চলাচল করে শমশেরনগর চৌমুহনা ব্যবহার করে। তাছাড়া শমশেরনগরে বাংলাদেশ বিমানবাহিনী পরিচালিত বিএএফ শাহীন কলেজে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন আসা যাওয়া করছে।

উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ও মাধবপুর চা বাগান লেকে আগত পর্যটকবাহী যানবাহনগুলো শমশেরনগর সড়ক ব্যবহার করে বড়লেখা উপজেলার মাধবকুন্ড জলপ্রপাতে যাতায়াত করেন। তাছাড়া শমশেরনগরে-চাতলাপুর সড়ক, শমশেরনগর-কুলাউড়া ও শমশেরনগর-কমলগঞ্জ রুটে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিক্সা রাখা হয় সড়কের দুই ধারে। তার উপর শমশেরনগর-শ্রীমঙ্গল ও শমশেরনগর-কুলাউড়া রুটে চলাচলকারী যাত্রীবাহী বাসগুলোও রাখা হয় সড়কের উপর।

ফলে প্রতি আধা নিমিট অন্তর কমলগঞ্জ-শমশেরনগর সড়কের হাজী মো: উস্তওয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামন থেকে শমশেরনগর-কুলাউড়া সড়কের বিএএফ শাহীন কলেজের সামন, শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন সড়ক ও শমশেরনগর-চাতলাপুর স্থল শুল্ক স্টেশন তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। একবার যানজট লাগলে টানা আধা ঘন্টা পর যানজট কিছুটা কমে। আবার মালামালবাহী বড় ট্রাক বা কার্গো আসলে আবার যানজট শুরু হয়।

শমশেরনগরের দুটি কলেজ, তিনটি উচ্চ বিদ্যালয়, দুটি কেজি স্কুল ও দুটি প্রাথমিক বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীরা এসব সড়ক দিয়ে স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারে না। আর যানজটে আটকা পড়া যাত্রীরাও পড়েন দুর্ভোগে। বিশেষ করে আটকা পড়া যানবাহনের ভিতর কোন রোগী থাকলে তার দুর্ভোগ আরও বেড়ে যায়। আলাপকালে বিএএফ শাহীন কলেজের শিক্ষার্থী প্রীতি রানী নাথ, লিছা বেগম, ফরিদুল ইসলাম, আইডিয়াল কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষার্থী পূর্বা রানী দাশ, অভিভাবক বাবর মিয়া জানান, যত্রতত্র রাখা যানবাহনের ভিড়ে স্কুল-কলেজে পায়ে হেঁটে যাওয়াই কষ্টকর হয়ে পড়ে। বিশেষ করে চৌমুহনা ও এয়ারপোর্ট রোডে জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে।

হাজী মো: উস্তওয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সিনিয়র শিক্ষক মো: সালাউদ্দীন তফাদার, আইডিয়াল কেজি স্কুল শিক্ষক সুজিত দেবনাথ, বিএএফ শাহীন কলেজ শিক্ষক এম এ আউয়াল (উজ্জল), ব্যবসায়ী নুরুল মোহাইমীন, রফিকুল ইসলাম, প্রেমানন্দ দেবনাথ বলেন, শমশেরনগর এলাকাটি ব্যবসা বানিজ্যসহ সার্বিক দিকে বৃহত্তর সিলেটের গুরুত্বপূর্ণ জনপদ হওয়ায় দিনে দিনে যানবাহনের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। সড়কের দুই ধারে সিএনজি অটোরিক্সা রেখে যাত্রী তোলা ও নামানো হয়। আবার যাত্রীবাহী বাস রাখা হয় সড়কের উপর।
প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার শ্রীমঙ্গল হাট থেকে মোদী ব্যবসায়ীদের পণ্যবাহী ট্রাক সড়কে রেখে পণ্যসামগ্রী খালাস করা হয়। এ সময়ও যানজটের সৃষ্টি হয়। তারা শমশেরনগর বাজারে জরুরী ভিত্তিতে ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানান। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক অরুপ কুমার চৌধুরী শমশেরনগর বাজারে যানজটের সমস্যার কথা স্বীকার করে বলেন, প্রায়ই ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা যানজট নিরসনে কাজ করে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক ও সড়ক জনপথ বিভাগ, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী মিন্টু রঞ্জন দেবনাথ শমশেরনগরে যত্রতত্র সিএনজি অটো, রিক্সা ও বাস রাখার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শীঘ্রই এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.