কৃষি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কমলগঞ্জে টমেটো ক্ষেত পরিদর্শন

জয়নাল আবেদীন,
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মকবুল হোসেন এমপি’র নেতৃত্বে সংসদীয় কমিটির ৫ এমপি উপজেলার টমেটো ক্ষেত পরিদর্শন শেষে মৌলভীবাজার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উদ্যোগে মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় তিলকপুরের টমেটো ক্ষেত পরিদর্শন শেষে মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়েছেন।
কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মকবুল হোসেন এমপি’র মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার তিলকপুরে টমেটো ক্ষেত পরিদর্শনকালে মতবিনিময় সভায় বলেন, সিলেট অঞ্চল এক সময় প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর ছিল। তখন কৃষি কাজ হতো না। কৃষকের জমি পতিত থাকতো। বর্তমান সরকার কৃষকদের উৎসাহিত করছে। এজন্য কৃষি বিভাগ, প্রশাসন সহ সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা কর্মচারীরা কৃষকদের পাশে আছেন। তিনি আরও বলেন, কমলগঞ্জের কৃষকরা সারা বছর নিজেরা টমেটো খাচ্ছেন ও দেশের মানুষকে টমেটো খাওয়াচ্ছেন। আগে মৌসুম ভিত্তিক সবজি পাওয়া গেলেও এখন বার মাসে টমেটো, শিম, গাজর পাওয়া যাচ্ছে। এর অবদান দেশের কৃষক সাধারণের ও সরকারের উৎসাহ। তিনি আরও বলেন, সরকার গবেষণার মধ্যদিয়ে দেশকে পরিচালনা করছে।
মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম এর সভাপতিত্বে ও মৌলভীবাজার জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা জসিম উদ্দীনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মকবুল হোসেন এমপি। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মামুনুর রশীদ কিরন এমপি, নজরুল ইসলাম বাবু এমপি, এ.কে.এম রেজাউল করিম তানসেন এমপি, এড. উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) সিরাজুল ইসলাম হায়দার।
কমলগঞ্জে কৃষি উৎপাদনের অভুর্তপূর্ব সাফল্যেও কথা তুলে ধরে স্বাগতিক বক্তব্যে মৌলভীবাজার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক মো. শাহজাহান বলেন, এখানে বার মাস টমেটো উৎপাদন হয় এবং বছওে ১০ থেকে ১২ কোটি টাকার টমেটো উৎপাদন হয়। অন্যান্যের মধ্যে তিলকপুরের কৃষক ব্রজেন্দ্র কুমার সিংহ, কৃষানী সুজিতা সিনহা, কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে মৌলভীবাজার জেলার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আনোয়ারুল হক, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হক সহ কৃষি বিভাগের সকল স্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি ও কৃষকরা উপস্থিত ছিলেন।