কমলগঞ্জে বন্যপ্রাণির আক্রমনে ৮ জন আহত

0
(0)

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে অজ্ঞাত একটি বন্য জন্তুর হামলায় দুই দিনে নারীসহ ৮ জন আহত হয়েছেন। উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা দিঘলগজি এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর থেকে স্থানীয় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করায় এলাকাবাসীকে সতর্কতার সাথে চলাচল করতে নির্দেশনা দিয়েছে বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষ বিভাগ।শনিবার বেলা আড়াইটায় বন্য জন্তুটি এক নারীকে কামড়িয়ে আহত করার পর রাত আটটার মধ্যে আরও ৫ জনকে আহত করে।২৪ ডিসেম্বর রবিবার দুপুরে আরও দুইজনকে কামড়িয়ে আহত করে বন্য জন্তুটি।

রহিমপুর ইউপি সদস্য মুজিবুর রহমানসহ এলাকাবাসী জানান, কালেঙ্গা দিঘলগছি এলাকায় ঘন বন রয়েছে। সে বনে অনেক বন্য জন্তু আছে। শনিবার একটি বন্য জন্তু বন থেকে লোকালয়ে এসে কালেঙ্গা দিঘলগছি এলাকার পারুল বেগম (৪৫) নামের এক নারীকে কামড়িয়ে আহত করে। তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ও পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। শনিবার রাতে বন্য জন্তুটি একই এলকায় হামলা চালিয়ে তাওহিদ মিয়া (১৯), রাজু মিয়া (২২), আঙ্গুর মিয়া (২৩), শরীফ মিয়া (১৭) ও মনহর মিয়া (৫০) আহত করে। আহতদের মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেন।

রোববার দুপুরে আবারও বন্য জন্তুটি লোকালয়ে বের হয়ে হামলা চালালে ইয়াছিন মিয়া (১৮) ও ফরিদ হোসেন (২৭) আহত হন। আক্রান্তদের দেওয়া বর্ণনায় জন্তুটিকে মেছো বাঘ বলে মনে হয় আবার বন কুকুর বলে মনে হয়। তবে আসলে জন্তুটি কি তা সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষ বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা মিহির কুমার দো-সহ কর্মকর্তার কালেঙ্গা এলাকা পরিদর্শন করেন।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষ বিভাগের বিভাগীয় সহকারী বন সংরক্ষক মো. তবিবুর রহমান বলেন, আক্রমনকারী প্রাণিটি কি তা বুঝা যাচ্ছে না। তবে আক্রান্তদের বর্ণনায় ধারনা করা হচ্ছে শিয়াল আক্রমণ চালাতে পারে। বভাগীয় বন কর্মকর্তা(বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষ বিভাগ) মিহির কুমার দো বলেন, এ এলাকায় বন্য কোন নেই। তবে আক্রান্ত ও গ্রামাবসীদের বর্ণনায় ধারনা করা হচ্ছে পাগলা শিয়াল হামলা চালাতে পারে। তিনি আরও বলেন, এদিকে বন বিভাগ কড়া নজরদারি করছে।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.